শনিবার, জানুয়ারি ২১, ২০১৭


Find us on

মুসলিম ভেবে শিখ ছাত্রকে হেনস্তার অভিযোগ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে

ওয়াশিংটন ও লন্ডন, ২১ নভেম্বরঃ আশঙ্কা ছিল। ঘটছেও। হেনস্তা, বিদ্বেষের শিকার হচ্ছেন সংখ্যালঘু, মুসলিম ও অভিবাসীরা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের জয়ের পর থেকেই প্রকাশ্যে হেনস্থা চলছে মুসলিম, অভিবাসী ও সংখ্যালঘুদের। সম্প্রতি এই তিক্ততার বলি হলেন হার্ভার্ড ল’স্কুলের এক শিখ ছাত্র।

আইনের প্রথম বর্ষের ছাত্র ২২ বছরের হরমন সিং ম্যাসাচুসেস্টের একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে হেনস্তার শিকার হন। সূত্রের খবর, এই শপিং সেন্টারে হরমন ঢুকেছিলেন কেনাকাটা করতে। কেনাকাটা করতে করতেই মায়ের সঙ্গে ফোনে কথা বলছিলেন। ওই সময় এক ব্যক্তি স্টোর কাউন্টারের ক্লার্ককে ডেকে বলেন, ‘ওই দেখুন, ওখানে একজন মুসলিম। শুরু হয়ে যায় হেনস্তা।’ সম্ভবত দাড়ি আর পাগড়ি দেখে হরমনকে মুসলিম বলে ভাবা হয়। তা হলেও কেন এমন ভাবা হবে? তাছাড়া মুসলিম মানেই কি বিপজ্জনক? প্রশ্ন বিভিন্ন মহলের। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচার চলাকালীন মার্কিন জাত্যাভিমানের কথা বলেছিলেন ট্রাম্প। প্রচুর বিতর্কিত মন্তব্য করে উসকেছেন আম মার্কিনদের। যার মূল কথা, মার্কিন প্রেসিডেন্টের কুরসিতে তিনি বসলে পাততাড়ি গোটাতে হবে অবৈধ অভিবাসীদের। সমস্যায় পড়বেন সংখ্যালঘু ও মুসলিমরা। হরমনকে হেনস্তার মতো ইতিমধ্যে আরও ২০০টি বিদ্বেষের ঘটনা ঘটেছে আমেরিকার বিভিন্ন জায়গায়। বিদায়ি মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কিন্তু এত কিছুর পরও মন্তব্য করেছেন, পরিস্থিতিই সংযত হতে শেখাবে ট্রাম্পকে। পেরুর রাজধানী লিমায় আয়োজিত ‘এশিয়া প্যাসিফিক ইকনমিক কো-অপারেশন’ সম্মেলনে ওবামা বলেছেন, ‘একটু অপেক্ষা করুন আর দেখুন। হোয়াইট হাউসে গেলে বাস্তব পরিস্থিতি তাঁকে (ট্রাম্পকে) মানিয়ে নিতে শেখাবে।’

একটি সূত্রের খবর, ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের তরফে ভাবী মার্কিন প্রেসিডেন্টকে আমন্ত্রণ জানানো হতে পারে। ব্রিটেন-আমেরিকা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক মজবুত করতেই ট্রাম্পকে ব্রিটেন সফরে আমন্ত্রণ করতে পারে বাকিংহাম প্যালেস।