শনিবার, জানুয়ারি ২১, ২০১৭


Find us on

হাততালির পরেও থেমে যেতে পারে যমুনার পথচলা

দিনহাটা, ২৮ নভেম্বরঃ মাটি থেকে ৪-৫ ফুট উচুতে বাঁধা দড়ি। সেই দড়ি দিয়ে হেঁটে এপার-ওপার করছে ছোট্ট একটি মেয়ে। কখনও হাতে ধরা তার একটি বাঁশ আবার কখনও দড়ির ওপর দিয়ে সাইকেলের চাকার রিং গড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছে। খেলা দেখানোর জায়গাটায় রয়েছে মাটির ওপর পাতা এক টুকরো কাপড়। তার খেলা দেখে কখনও সেই কাপড়ে এসে পড়ছে দর্শকদের ছুড়ে দেওয়া কিছু পয়সা আবার কখনও মিলছে হাততালি। এভাবেই ছোট্ট যমুনা তার কেরামতি দেখিয়ে চলছে একের পর এক জায়গায়। কিন্তু একটুও পরওয়া নেই তাকে নিয়ে যারা এই খেলায় মেতেছেন। কিন্তু এব্যাপারে সচেতন করেছেন বহু মানুষ। এর পাশাপাশি এই ব্যাপারে অনেকে শ্রম দপ্তরের হস্তক্ষেপ দাবিও করেছেন। তবে শ্রম দপ্তরের এক আধিকারিক অবশ্য জানান, এ ব্যাপারে তারা সরাসরি হস্তক্ষেপ করতে পারেন না। ১৪ বছরের নীচে বয়স হলে চাইল্ড লাইনের তরফে ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

এদিকে যমুনার সঙ্গে দিনহাটায় আসা তার দাদা বৌদি পত্রিকার কথা শুনে মুখে কুলুপ এঁটেছেন। নিজেদের নাম পর্যন্ত বলতে রাজি হননি তাঁরা। কিন্তু এক প্রশ্নের উত্তরে তার দাদা দারিদ্র্যের কথা জানান। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার মতে দারিদ্র্যও শিশুশ্রমের অন্যতম প্রধান কারণ। তবে প্রশ্ন উঠছে, দেশ যখন ডিজিটাল ইন্ডিয়ার লক্ষ্যে এগোচ্ছে  তখন ছোট যমুনাদের বিপজ্জনক পথে হাঁটা জারি রেখে কতটুকু তা ফলপ্রসু হবে?