শুক্রবার, জুলাই ২৮, ২০১৭


Find us on

পাহাড়ে আজ সর্বদল বৈঠক, মোর্চার তাণ্ডবে বিরক্ত হরকা

শিলিগুড়ি, ৬ জুলাইঃ দার্জিলিং নো ম্যানস ল্যান্ড হয়ে গিয়েছে।  কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকার নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে।  মোর্চার তাণ্ডব আর মেনে নেওয়া যাচ্ছে না। মঙ্গলবার কালিম্পংয়ে পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠায় প্রচণ্ড বিরক্ত হরকাবাহাদুর ছেত্রি । উত্তরবঙ্গ সংবাদকে তিনি বলেছেন, মোর্চা যা করছে তা তো আর মেনে নেওয়া যাচ্ছে না। দিনের পর দিন পাহাড়ে এসব চলছে আর কেন্দ্র-রাজ্য চুপচাপ বসে আছে। এতে আমরা চক্রান্তের গন্ধ পাচ্ছি।

মোর্চা নেতৃত্বে গোর্খাল্যান্ড আন্দোলনে সায় দিলেও মোর্চা সমর্থকদের কাজকর্ম নিয়ে প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ জন আন্দোলন পার্টির (জাপ) নেতা হরকাবাহাদুর ছেত্রি এবং জিএনএলএফ নেতা মন ঘিসিং। বিশেষ করে মঙ্গলবার যেভাবে হরকাবাহাদুরের খাসতালুক কালিম্পংয়ে মোর্চা সমর্থকরা সরকারি সম্পত্তি জ্বালিয়েছে তাতে রীতিমতো ফুঁসছেন হরকা। এই পরিস্থিতিতে আজ, বৃহস্পতিবার কালিম্পংয়ের পেডংয়ে গোর্খাল্যান্ড আন্দোলনের পরবর্তী রূপরেখা ঠিক করতে সর্বদলীয় বৈঠকে বসছে পাহাড়ের দলগুলি। মোর্চার নেতৃত্বে গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে আন্দোলনে সায় দিলেও মোর্চা সমর্থকদের কাজকর্ম প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ জিএনএলএফ এবং জাপ। ফলে সর্বদলীয় বৈঠক উত্তপ্ত হবে তার আগাম ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন হরকা ও মন দুজনেই। সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুর, আগুন লাগানো, পুলিশ কর্মীদের উপর হামলা, অনিকেত ছেত্রির মৃত্যুর মতো একাধিক ইশ্যুতে তাঁরা মোর্চাকে কড়া বার্তা দেবেন বলেই খবর। ফলে পাহাড়ে পৃথক রাজ্যের দাবিতে আন্দোলনের ভবিষ্যৎ কোন পথে যাবে, তা অনেকটাই ঠিক করে দেবে সর্বদল বৈঠক।