শুক্রবার, জুলাই ২৮, ২০১৭


Find us on

বিলকিস বানু বিচার পাবেন কি, প্রশ্ন উঠছে

নয়াদিল্লি ও মুম্বই, ৬ এপ্রিলঃ নির্ভয়া কাণ্ডে চার ধর্ষকের মৃত্যুদণ্ড সুপ্রিম কোর্ট বহাল রাখতেই নতুন করে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে বিলকিস বানু ধর্ষণ ও হত্যা মামলা নিয়ে। দিল্লি হাইকোর্ট নির্ভয়ার উপর নৃশংস অত্যাচারের জন্য চারজনকে মৃত্যুদণ্ড দিলেও বম্বে হাইকোর্ট ঠিক তার উলটো রাস্তায় হেঁটেছে। অথচ, দুটি মামলার প্রাথমিক তদন্ত রিপোর্ট প্রায় একইরকম।

২০১২ সালে দিল্লিতে বাসের মধ্যে নির্ভয়াকে ধর্ষণের পর তার উপর অকথ্য অত্যাচার চালিয়েছিল ছয়জন। তাদের মধ্যে একজন নাবালক বলে আগেই মুক্তি পেয়েছে। একজন জেলের মধ্যেই আত্মহত্যা করেছে। বাকি চারজনকে দিল্লি হাইকোর্ট মৃত্যুদণ্ড দেয়। গত শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চও সেই রায় বহাল রেখেছ।

২০০২ সালে গোধরা কাণ্ডের পর বিলকিস বানুর উপরও ঠিক একইভাবে নৃশংস অত্যাচার করেছিল উন্মত্ত কয়েকজন। তাকে গণধর্ষণ করার পর তার চোখের সামনে পরিবারের ১৪ জনকে খুন করা হয়েছিল। তার মধ্যে বিলকিসের পাঁচ বছরের ছোট্ট ছেলেও ছিল। ১৫ বছর পরেও কিন্তু বিলকিসের ছেলের ঘাতকরা শাস্তি পায়নি।

প্রশ্ন উঠছে, গোধরায় হিন্দু মৌলবাদীদের নাম জড়ানোতেই কী বিলকিস বানুর মামলার অভিযুক্তরা এভাবে রেহাই পেয়ে যাবে ? অনের আইনজীবীই নির্ভয়া কাণ্ডে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর বিলকিস কাণ্ডে বম্বে হাইকোর্টের রায়ের প্রসঙ্গে বলছেন, একই ধরনের দুটো মামলায় আইন দু-রকম বিচার করে কীভাবে ?

প্রসঙ্গত বিলকিসের ঘটনায় অভিযুক্তদের মৃত্যুদণ্ডের আবেদন তো বম্বে হাইকোর্ট খারিজ করেই দিয়েছে। শুধু তাই নয়, অভিযুক্তদের যাবজ্জীবনেও স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়েছে।

নির্ভয়া মামলার রায় বেরনোর পর বিলকিস বলছেন, দেশের বিচার ব্যবস্থার উপর আমার আস্থা আছে। আমার উপর অত্যাচার করেছিল যারা তারাও একদিন চরম শাস্তি পাবে বলে আশা করছি।