Find us on

লক্ষাধিক মানুষের সমাগম রাজ্যের বৃহত্তম ইদগাহ ময়দানে
উত্তরবঙ্গ
মালদা

nমালদা ২ সেপ্টেম্বরঃ ইদুজ্জোহা সাড়ম্বরে পালিত হল মালদায়। আরবি শব্দ কুরবান, বাংলায় আভিধানিক অর্থ ত্যাগ। এই কুরবান শব্দ থেকেই কুরবানি শব্দের উৎপত্তি। ঈদুজ্জোহা কে অনেকেই কুরবানি বলে থাকে। মহান শ্রষ্ঠা আল্লাহ্‌ র নৈকট্য পাওয়ার উদ্দেশ্যে নিজের প্রিয় জিনিসকে কুরবানি বা ত্যাগ করা। শনিবার সকাল থেকেই জেলাজুড়ে পালিত হয় ইদুজ্জোহা। জেলার বিভিন্ন প্রান্তের মসজিদ ও ইদগাহ ময়দানগুলোয় ছিল ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের উপচে পড়া ভীড়। তবে উত্তর মালদার ৫টি ব্লকে বন্যা বিপর্যয়ে এখনো জলের তলায় বিস্তীর্ণ এলাকা। জলের তলায় ইদগাহ ময়দান।

প্রতিবছরের মত এবছরও রাজ্যের বৃহত্তম ইদগাহ ময়দান সুজাপুর নয়মৌজায় ইদুজ্জোহায় লক্ষাধিক মানুষ সমবেত হন। বৃহত্তম জমায়েতকে কেন্দ্র করে পুলিশি নিরাপত্তা ছিল আটোসাটো। নামাজ শুরুর আধাঘণ্টা আগে থেকেই ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক বন্ধ করে দেওয়া হয়। নামাজের লাইন ইদগাহ মাঠ পেরিয়ে জাতীয় সড়কে উঠে আসে। সকাল ৯টায় শুরু হয় ঈদের নামাজ।                                                                           শহরের সুভাষপল্লী ইদগাহ ময়দানে ২৫ হাজার মানুষ ইদুজ্জোহার নামাজ পাঠে সমবেত হন।                     ইদুজ্জোহার নামাজ জেলার সর্বত্র সুষ্ঠুভাবে পালিত হলেও অসুবিধার মুখে পড়তে হয় বন্যাদুর্গত ব্লক গুলিতে। হরিশ্চন্দ্রপুর ১, হরিশ্চন্দ্রপুর ২, চাঁচল ১, চাঁচল ২ ও রতুয়া ২ ব্লকের বহু অংশ এখনো জলের তলায়। জলের তলায় রয়েছে বহু মসজিদ ও ঈদগাহ ময়দান। ফলে উঁচু স্থান গুলিতে নামাজের আয়োজন হয়। কোথাও বাঁধের উপর আবার কোথাও আমবাগানের ভিতরে নামাজ সংগঠিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *