Find us on

ভালো চাকরি ছেড়ে বাবার পথে পা জনি-কন্যা জেমির
সিনেমা ও বিনোদন

নয়াদিল্লি, ২০ অক্টোবরঃ বলিউডের কমেডিয়ান জনি লিভারের মেয়ে ২৯ বছরের জেমি। তবে বাবা-মেয়ে দেখতে মোটেই একই নন। কিন্তু তবুও দুজনের মধ্যে একটা বড় মিল রয়েছে। অন্যের মুখে হাসি ফোটাতে দুজনেই পারদর্শী। কারণ দুজনের শরীরেই বইছে একই রক্ত। জেমি একজন স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ান।

তবে জেমি বা জনি কেউ স্বপ্নেও ভাবেননি যে, জেমি একজন কমেডিয়ান হবেন। জেমির কথায়, রিয়েল লাইফে তাঁর বাবা অন স্ক্রিনের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। খুব স্ট্রিক্ট, রক্ষণশীল সাউথ ইন্ডিয়ান ড্যাড। বরাবরই ফিল্মি দুনিয়া থেকে দূরে রাখা হয়েছে তাঁদের। জনি চেয়েছিলেন মেয়ে পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন করে ভালো চাকরি করে যাতে সেটল হন। তাই বাবার ইচ্ছা পূরণ করতে জেমি লন্ডন থেকে মার্কেটিং কমিউনিকেশনে পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন করেন।

লন্ডনে থাকাকালীন মাঝে মধ্যেই বিভিন্ন কমেডি ক্লাবে যেতেন জেমি। শেষে একটা মার্কেট রিসার্চ কম্পানিতে সেলস পার্সনের চাকরি করেন। তবে জেমির বরাবরই মনে হত চাকরি তাঁর জন্য নয়। তাঁর জায়গা কমিডিতে।

জেমির কথায়, একদিন তাঁর বাবা লন্ডনে শো করতে আসেন। জেমি খুব ভয়ে তাঁকে জানালেন শো-তে অংশগ্রহণ করতে চান। এরপর জনি তাঁর মেয়েকে একটা সুযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। একই সঙ্গে তিনি মেয়েকে সতর্ক করে দেন যাতে দর্শকদের নিরাশ না হতে হয়। সেদিন শোয়ের শেষে একজন দর্শক চিত্‍কার করে বলে ওঠেন,   ‘জনি ভাই, আপনার মেয়ে তো আপনার থেকেও অনেক আগে যাবে।’ এরপরই জেমিকে চাকরি ছেড়ে মুম্বইতে আসতে বলেন জনি। সম্মতি দেন কমেডিয়ান হওয়ার।

সেই থেকে বাবাই জেমির মেন্টর এবং একসঙ্গে তাঁরা দেড়শোরও বেশি লাইভ শো করেছেন। এছাড়াও জেমি ছোটপর্দার শো ‘সবসে বড়া কলাকার’ এর সঞ্চালনাও করেছেন। ইতিমধ্যেই বলিউডেও বেশ কয়েকটা ছবির জন্য অফার পেয়েছেন জেমি।

 

ভালো চাকরি ছেড়ে বাবার পথে পা জনি-কন্যা জেমির

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *