বুধবার, জুন ২৮, ২০১৭


Find us on

পুকুর ও আমবাগান দখলকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্র মালদা

মালদা, ১৩ জুনঃ একটি খাস পুকুর ও তার পাড়ে থাকা আমবাগান দখলকে কেন্দ্র করে আজ দুপুরে রণক্ষেত্রের রূপ নিল গাজোল ব্লকের পাণ্ডুয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের নরশি’সা গ্রাম। ব্যাপক বোমাবাজি, ভাঙচুর, শ্লীলতাহানিকে কেন্দ্র করে আহত হয়েছেন ওই গ্রামেরই ৩ আদিবাসী মহিলা সহ আরও ৫ জন। আহতরা প্রত্যেকেই গাজোলের হাতিমারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসাধীন।

প্রথম অবস্থায় ছত্রভঙ্গ হয়ে গেলেও কিছু সময় পর তিরধনুক ও লাঠিসোঁটা নিয়ে পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তোলে আদিবাসীরা। এপরই আক্রমণকারীরা পালিয়ে যায়। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, বোমাবাজি এবং আক্রমণের ঘটনায় প্রত্যক্ষভাবে ছিল পাণ্ডুয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান দাশু মণ্ডল, তৃণমূল সভাপতি মধু ঘোষ সহ ৩০-৩৫ জন। ঘটনার জেরে বেলা ১১ টা নাগাদ পাণ্ডুয়ার ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে আদিবাসীরা। নেতৃত্ব দেয় ঝাড়খণ্ড দিশম পার্টি। খবর পেয়ে প্রথমে গাজোল থানার পুলিশ গ্রামে যায়। এরপর জেলা থেকে আসে অতিরিক্ত পুলিশবাহিনীও। ঘটনার পর থেকে গ্রামে টহল দিতে শুরু করেছে পুলিশবাহিনী। দাশু মণ্ডল সহ ৩৫ জনের নামে গাজোল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে আদিবাসীরা। অভিযুক্তদের অবিলম্বে গ্রেফতার না করলে বৃহত্তর আন্দোলনের হুঁশিযারি দিয়েছে ঝাড়খণ্ড দিশম পার্টি সহ আক্রান্ত আদিবাসীরা। এদিকে ঘটনায় দলের নাম জড়িয়ে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ তৃণমূল নেতৃত্ব। কোর কমিটির সদস্য প্রাক্তন বিধায়ক সুশীলচন্দ্র রায় বলেন, দল এসব বরদাস্ত করবে না। জেলা নেতৃত্বকে জানানো হয়েছে গোটা ঘটনাটি।

পঞ্চায়েতের উপপ্রধান ও তার দল পলাতক। এদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।

উল্লেখ্য, আদিবাসী অধ্যুষিত মালদার নরশি’সা গ্রামে একটি সরকারি খাস পুকুর ও আমবাগান রয়েছে। গ্রামের বাসিন্দারাই দীর্ঘদিন ধরে ওই পুকুর ও বাগানের ভোগদখল করে আসছিলেন। কিন্তু মাস দুয়েক ধরে ওই পুকুর ও বাগান দখলের চেষ্টা করছে তৃণমূল উপপ্রধান দাশু মণ্ডল ও তার দল। এই গ্রামে একাধিকবার হামলাও চালায় তারা। এর বিরুদ্ধে গাজোল থানায় অভিযোগ দায়ের করলেও আমল দেয়নি পুলিশ। তারপরেই আজ এই ঘটনায় ক্ষিপ্ত গ্রামবাসী।