বুধবার, জুন ২৮, ২০১৭


Find us on

অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবি, থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ আদিবাসীদের

গাজোল, ১৯ জুনঃ পাণ্ডুয়ার নরশিসা গ্রামে পুকুর ও আমবাগান দখলকে ঘিরে বোমাবাজির ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে সোমবার গাজোল থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখালেন আদিবাসীরা। ঝাড়খণ্ড দিশম পার্টি, আদিবাসী সেঙ্গেল অভিযান এবং অল ইন্ডিয়া মাঝি পরগনা মাণ্ডোয়ার ডাকে এই বিক্ষোভ চলে। বেলা ২টা থেকে ৫টা পর্যন্ত চলে বিক্ষোভ। এরপর পুলিশের আশ্বাস পেয়ে এদিনের মতো বিক্ষোভ তুলে নেওয়া হয়। তবে আগামী ২২ জুনের মধ্যে অভিযুক্তরা গ্রেফতার না হলে আবার বড়োসড়ো আন্দোলন হবে বলে জানিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা।

উল্লেখ্য, গত ১৩ জুন পাণ্ডুয়ার নরশিসা গ্রামের ফারাসভা দিঘির দখল নিয়ে ওই গ্রামের আদিবাসীদের উপর বোমাবাজির অভিযোগ ওঠে। আদিবাসীদের অভিযোগ, পাণ্ডুয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান দাশু মণ্ডল এবং পাণ্ডুয়া অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি মধু ঘোষের নেতৃত্বে বোমাবাজি করা হয়। বোমার আঘাতে বেশকিছু আদিবাসী জখম হন। এঁদের মধ্যে ৫ জনকে হাতিমারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভরতি করা হয়। ঘটনার পরই পাণ্ডুয়ায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন আদিবসীরা। পরে পুলিশের আশ্বাসে অবরোধ উঠে যায়।

ঝাড়খণ্ড দিশম পার্টির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটির সহসভাপতি মোহন হাঁসদা বলেন, ‘সেদিন যে ৩৫ জনের নামে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল, তার মধ্যে কয়েকজন চুনোপুঁটিকে ধরেছে পুলিশ। তবে রাঘব বোয়ালদের এখনো ধরেনি। উলটে ঘটনার প্রতিবাদ করায় আমাদের সমর্থক সনৎ টুডুকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠিয়েছে। এরই প্রতিবাদে এদিন থানা ঘেরাও-এর ডাক দেওয়া হয়।

গাজোল থানার ওসি পূর্ণেন্দু মুখোপাধ্যায় জানান, ঘটনার তদন্ত চলছে। এলাকায় শান্তি ফিরিয়ে আনার জন্য ওই গ্রামে পুলিশ পিকেট বসানো হয়েছে। নিয়মিতভাবে পুলিশি টহলও চলছে। তদন্তে যারা দোষী প্রমাণ হবে, তাদের সবাইকে গ্রেফতার করা হবে।