Find us on

মুসলিম ল বোর্ডকে প্রশ্ন সুপ্রিমকোর্টের
দেশ

নয়াদিল্লি, ১৭ মেঃ তিন তালাক প্রথায় মুসলিম মহিলাদের কি ‘না’ বলার অধিকার দেওয়া যাবে? তিন তালাক মামলার শুনানিতে বুধবার অল ইন্ডিয়া মুসলিম ল বোর্ডকে (এআইএমএলবি) এই প্রশ্ন করল সুপ্রিমকোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চ।

সাংবিধানিক বেঞ্চ প্রশ্ন তোলে, নিম্নস্তরে সমস্ত মুসলিম কাজিদেরও কি এই নিয়ম মেনে চলতে হবে? জবাবে এআইএমএলবি-র অন্যতম আইনজীবী ইউসুফ মুচালা জানান, নিম্নস্তরে কাজিদের বোর্ডের নির্দেশ মানতেই হবে এমন কোনো নিয়ম নেই। পালটা মুসলিম ল বোর্ডের আইনজীবী তালাকের মতো একটি ধর্মীয় প্রথার বিষয়ে শীর্ষ আদালত বিচার করতে পারে কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন করেন।

ইউসুফ মুচালার দাবি, তিন তালাক মুসলিমদের বিবাহ বিচ্ছেদের ক্ষেত্রে কোনো জনপ্রিয় পন্থা নয়। মাত্র ০.৪৪ শতাংশ ক্ষেত্রে তিন তালাক উচ্চারণ করে তাত্ক্ষণিক বিবাহ বিচ্ছেদ করার ঘটনা শোনা যায়। মুচালা বলেন, ‘১৪০০ বছর ধরে যে প্রথাটি মুসলিম সমাজে চলে আসছে, হঠাত্ করে সেই প্রথা কীভাবে সুপ্রিমকোর্টের বিচার্য বিষয় হতে পারে।’

এর প্ররিপ্রেক্ষিতে পাঁচ সাংবিধানিক বেঞ্চের বিচারপতি জোসেফ কুরিয়ান প্রশ্ন করেন, যদি সেই বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষই মনে করেন, তিন তালাক যুক্তিসঙ্গত নয়, সেই প্রসঙ্গে মুসলিম ল বোর্ডের কী মত? এর জবাবে এআইএমএলবি-র প্রবীণ আইনজীবী মুচালা স্বীকার করেন, যেভাবে তিন তালাক উচ্চারণ করে বা এসএমএস ইমেলের মাধ্যমে তালাক দেওয়ার প্রবণতা বাড়ছে, তা সঠিক নয়। তাই তাঁরা চেষ্টা করছেন মুসলিম সমাজের মানুষকে এই বিষয়ে সঠিক শিক্ষা দিতে। মুচালার দাবি, তাঁরা মুসলিম সম্প্রদায়ের পুরুষদের বোঝাচ্ছেন, তিন তালাক প্রথাকে যেন নিয়মিত অভ্যাসে পরিণত করা না হয়।

উল্লেখ্য, সুপ্রিমকোর্টের প্রধান বিচারপতি জে এস খেহরের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ গত ১১ মে থেকে তিন তালাক মামলার চূড়ান্ত শুনানি শুরু করেছে। এই শুনানি চলবে আগামী ১৮ মে পর্যন্ত। আজ ছিল শুনানির পঞ্চম দিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *