Find us on

বৃক্ষরোপণ নিয়ে উত্তেজনা যাত্রাডাঙ্গায়
উত্তরবঙ্গ
মালদা

পুরাতন মালদা, ২৭ জুলাইঃ ১০০ দিনের কাজ প্রকল্পে গাছ লাগানোকে কেন্দ্র করে পঞ্চায়েত সদস্য সহ তাঁর স্বামীকে মারধরের অভিযোগ উঠল। ঘটনাটি ঘটেছে পুরাতন মালদার যাত্রাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৪ নম্বর সংসদে।

অভিযোগ, বুধবার এনআরজিএস প্রকল্পের গাছ লাগানোর কর্মসূচি নেন ১৪ নম্বর সংসদের সদস্য সাবিলা খাতুন। স্থানীয় একটি স্কুলের পাশে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা গাছ লাগাচ্ছিলেন। সেইসময় গ্রাম পঞ্চায়েতের কয়েকজন সুপারভাইজার বাধা দেন বলে অভিযোগ। এরপরই বচসা বাধে। খবর পেয়ে পঞ্চায়েত সদস্য ও তাঁর স্বামী ঘটনাস্থলে গেলে তাঁদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এনিয়ে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় যাত্রাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায়। ঘটনায় আহত হন পঞ্চায়েত সদস্যের স্বামী রবিউল ইসলাম। তিনি বর্তমানে মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিত্সাধীন।

সাবিলা খাতুন কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সদস্য। যারা তাঁদের ওপর হামলা চালায়, তারা তৃণমূল ঘনিষ্ঠ সুপারভাইজার বলে অভিযোগ। বর্তমানে যাত্রাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েত তৃণমূলের দখলে রয়েছে। গ্রাম পঞ্চায়েত সূত্রে খবর, সুপারভাইজাররা ১০০ দিনের কাজ প্রকল্পে গাছ লাগানোর দায়িত্বে রয়েছেন। সুপারভাইজারদের না জানিয়ে গাছ লাগানোর কর্মসূচি নেওয়ার ঘটনার সূত্রপাত। এনিয়ে উভয়পক্ষই মালদা থানায় অভিযোগ করে বুধবার রাতে।

এপ্রসঙ্গে যাত্রাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান শতাব্দী সরকারের স্বামী তথা অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি রতন সরকার বলেন, ‘ঘটনাটি ছোটো। ওরা সেটাকে বড়ো করে দেখাচ্ছেন। সুপারভাইজাররা বলেছেন, ‘গাছ লাগানো আমাদের কাজ। এনিয়ে তর্ক শুরু হয়। পরে শুনেছি বচসা বাধে। ওরা সুপারভাইজারদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি করে।

পুরাতন মালদার বিডিও নরোত্তম বিশ্বাস বলেন, ‘ঘটনাটি শুনেছি। গাছ লাগানো নিয়ে বচসা হয়েছে। খোঁজ নিয়ে দেখছি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *