fbpx

Find us on

প্রেম দিবসে পাহাড়ে চোখ শহরবাসীর
অন্যান্য
উত্তরবঙ্গ
দার্জিলিং
প্রথম পাতা

শিলিগুড়ি, ১৪ ফেব্রুয়ারিঃ আজ ভ্যালেন্টাইনস ডে। কারও কাছে এই দিনটি একটি উত্সবের মতো, আবার কারও কাছে এই দিনটি একটি সাধারণ দিনের থেকে আলাদা কিছু নয়। কেউ চান গতাণুগতিক জীবন থেকে বেড়িয়ে নিজের ভালোবাসার মানুষটির সঙ্গে দিনটিকে একটু অন্যরকম ভাবে উদযাপন করতে। আবার কারও কাছে এক কাপ চা নিয়ে বসে গল্প করে দিনটি কাটিয়ে দেওয়াতেই ভালোবাসার অনুভূতি। এবছর গোটা ভ্যালেন্টাইনস উইক জুড়ে শিলিগুড়ির উপহারের দোকানগুলিতে ভিড় থেকেই স্পষ্ট, শহরের অল্পবয়সী যুগলদের কাছে এই দিনটির আলাদা মাহাত্ম্য রয়েছে। নানা কারণে শহরের মাঝে সময় কাটানোর সমস্যা থাকায়, পাহাড়ের কোলেই এবারের ভ্যালেন্টাইনস ডে ডেস্টিনেশন বেছে নিয়েছেন শিলিগুড়ি রোমিও-জুলিয়েটরা। শহরের বাসিন্দা শংকর দাস বলেন, ‘আমার জীবনে প্রতিটি দিনই ভালোবাসার দিন। ৮ থেকে ১৪ ফেব্রুযারি চারদিকে যেভাবে ভালোবাসার প্রকাশ দেখি, তাতে গোটা সপ্তাহ না হলেও এই বিশেষ দিনটিকে একটু অন্যভাবে কাটাতে ইচ্ছে করে। আমি ও আমার বউ, এই দিনটি এলেই পাহাড়ে চলে যাই। কার্সিয়াং, কালিম্পং কিংবা অন্য কোথাও, শহরের ভিড় থেকে দূরে পাহাড়ের মনোরম পরিবেশেই সময় কাটাতে পছন্দ করি আমরা দুজন।’একই কথা জয় পালের গলাতেও। তিনি বলেন, ‘শহরের মধ্যে যা পরিস্থিতি, তাতে কোথাও বসে দু’দণ্ড কথা বলতেও ভয় লাগে। তাই পাহাড়ে শহরের বাইরে সময় কাটাতেই পছন্দ করি। ভ্যালেন্টাইনস ডে -তে বান্ধবীর সঙ্গে পাহাড় কিংবা ডুয়ার্সের রাস্তায় ‘লং ড্রাইভ’ মাস্ট। তারপর শহরে ফিরে এসে বান্ধবীকে সারপ্রাইজ দেওয়া। বান্ধবীকে নিজে কেক বানিয়ে খাওযানো, এর থেকে সুন্দর ভালোবাসার মুহুর্ত আর কিছু হতে পারেনা। তবে অন্য কথাও শোনা গিয়েছে। যেমন অঙ্কিতা মজুমদারের বাইরে যাওয়ার থেকে ঘরে বসেই ভ্যালেন্টাইনস ডে উ‌দ্‌যাপন বেশি পছন্দ করেন। তাঁর কথায়, ‘নিজের বাড়ি কিংবা শহর ছেড়ে বাইরে যেতে হবে, সেটা আমি কখনোই মনে করি না। আমার কাছে ১৪ ফেব্রুয়ারি মানে বারান্দায় এক কাপ চা নিয়ে বসে ঘন্টার পর ঘন্টা নিজেদের সম্পর্কের সুন্দর সময়গুলি নিয়ে আলোচনা করা। বাইরে ঘুরে বেড়িয়ে যতটা ভালোবাসা প্রকাশ করা যায়, এক জায়গায় বসে গল্প করলে ভালোবাসা আরও বাড়ে বই কমে না।’

প্রেম দিবসে পাহাড়ে চোখ শহরবাসীর