Saturday, June 22, 2024
HomeExclusiveSiliguri water crisis | মহানন্দার জল স্পর্শ মানেই কী রোগকে আহ্বান জানানো?

Siliguri water crisis | মহানন্দার জল স্পর্শ মানেই কী রোগকে আহ্বান জানানো?

গৌরীশংকর ভট্টাচার্য, প্রাবন্ধিক

দুপুরের দিকে একটি পরিবার নেতাজি কেবিনে এসেছিলেন। আমিও তখন সেখানেই ছিলাম। দেখলাম, তাঁরা হাতে করে তিনখানা মিনারেল ওয়াটারের বোতল নিয়ে এসেছেন। বোতল সামলাতে রীতিমতো তাঁরা সমস্যায় পড়ছিলেন। আমি নিজেকে আটকাতে না পেরে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, এতগুলো বোতল নিয়ে ঘুরছেন কেন?

প্রশ্ন করা মাত্রই ওঁদের চোখেমুখে দেখলাম, আতঙ্কের ছাপ। কিছুটা উত্তেজিত হয়েই তাঁরা বললেন, ‘পুরনিগমের জল খেলেই মারা যাবেন, সর্বনাশ হয়ে যাবে। খবর শোনেন না? ওই জল পানেরও উপযুক্ত নয়।’ সঙ্গে তাঁরা আমাকেও কিছুটা সতর্কবার্তা দিয়ে বললেন, ‘মিনারেল ওয়াটার কিনেই খান। এতে সুস্থ থাকবেন। আগামী মাসের দুই তারিখ পর্যন্ত এটা খাওয়া যাবে না।’

আমাদের শৈশবকালে এই ধরনের মিনারেল ওয়াটার ছিল না। যেটা খেলে আমাদের আয়ু বাড়বে। আমরা কুয়োর জল খেয়েই বড় হয়েছি। কুয়োর জলেই যাবতীয় কাজকর্ম হত। তখন তো আমাদের মতো এত রোগব্যাধিও ছিল না। একজন চিকিৎসকেই সব চিকিৎসা হয়ে যেত।

আর এখন সকাল-সন্ধ্যা জ্যারিকেন, বোতল নিয়ে পুরনিগমের পানীয় জলের কলের দিকে সবাই ছুটে যাচ্ছে। মানুষ তো অভ্যাসের দাস। তাই পুরনিগমের কল থেকে বছরের পর বছর পানীয় জল খেয়ে খেয়েই অভ্যাস হয়ে গিয়েছে। আসলে এই সব কিছুই একশ্রেণির জার বিক্রেতাদের সুবিধা করে দেওয়ার একটা জায়গা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আর সত্যি কথা বলতে আমাদের শহরে তো কোনও পুকুরও নেই। শহর থেকে কিছুটা দূরে গুলমা নদী রয়েছে। দুঃখের ব্যাপার, শহরের মধ্যে দিয়ে যাওয়া নদীগুলোতে জল নেই। গোড়ালি অবধি ডোবে না। আর পুকুর তো কোনওদিনই ছিল না।

সত্যি কথা বলতে, এ ধরনের জলসংকটের পরিস্থিতি কোনও দিনই আমার নজরে পড়েনি। আর এসবের মধ্যে মহানন্দা নদীর কথাও কোথাও যেন জুড়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে জোসেফ ডালটন হুকারের কথা বলতেই হয়। ১৮৪৮ সালে মহানন্দা নদীর জল দেখে তিনি বলেছিলেন, নদীর জল একেবারে ট্রান্সপারেন্ট কাচের মতো। মহানন্দা নদীর জল অত্যন্ত নির্মল, জলটা পরিষ্কার। একশো বছর আগেও এক ব্যক্তি মহানন্দায় (Mahananda) স্নান করেছিলেন। তারপর তিনি শিলিগুড়ির (Siliguri) হোটেলে খেয়েছিলেন বলেও শুনেছিলাম। আসলে মহানন্দা গত আশি বছরে এতটা খারাপ হয়ে গেল। এই জল আমি কোনও দিন পান করতে পারিনি। এখন তো মহানন্দা নদীতে স্নান করা মানেই চর্মরোগকে ঘরে নিয়ে আসা। আসলে নদীটাকে নষ্ট করেছে মানুষ। সব নষ্ট হয়ে গিয়েছে।

Sushmita Ghosh
Sushmita Ghoshhttps://uttarbangasambad.com/
Sushmita Ghosh is working as Sub Editor Since 2018. Presently she is attached with Uttarbanga Sambad Digital. She is involved in Copy Editing, Uploading in website and various social media platforms.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -
- Advertisment -spot_img

LATEST POSTS

NDRF | ফিবছরই বন্যায় ভাসে মালদা জেলার একাংশ, পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রশিক্ষণ এনডিআরএফের   

0
গাজোলঃ বন্যায় জলমগ্ন এলাকা থেকে সাধারণ মানুষকে উদ্ধার করার জন্য লাইফ জ্যাকেট না থাকলে কী করবেন? হঠাৎ করে কেউ দুর্ঘটনাগ্রস্ত হলে রক্তক্ষরণ বন্ধ বা...

Kishanganj | গাড়ির ডিকি খুলতেই রাশি রাশি ৫০০ টাকার নোট! কিশনগঞ্জে উদ্ধার ৪৭ লক্ষ...

0
কিশনগঞ্জঃ বিলাসবহুল গাড়িতে লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে শিলিগুড়ি আসার পথে কিশনগঞ্জে পুলিশের হাতে ধরা পড়ল তিন যুবক। শুক্রবার দুপুরে টাকা উদ্ধার হয় কিশনগঞ্জের কাছে...

CSIR-UGC-NET | অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত সিএসআইআর-ইউজিসি-নেট, কী কারণ জানালো এনটিএ?

0
উত্তরবঙ্গ সংবাদ ডিজিটাল ডেস্ক : একদিকে নিট পরীক্ষা নিয়ে বিতর্ক, অন্য দিকে ইউজিসি নেট পরীক্ষা বাতিল নিয়ে গোটা দেশ উত্তাল। তারই মাঝে অনির্দিষ্টকালের জন্য...

Patiram | তৃণমূল কার্যালয়ে নাবালককে বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা! শোরগোল এলাকায়

0
পতিরাম: প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ায় বোল্লা তৃণমূল পার্টি অফিসে সালিশি সভায় ডেকে নাবালককে(Minor) বিয়ে দেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ উঠল তৃণমূল সংখ্যালঘু সেলের জেলার নেতার বিরুদ্ধে।...

Grasmore tea garden | বকেয়া মজুরির দাবিতে এককাট্টা তৃণমূল-বিজেপি, গ্রাসমোড় চা বাগানে বিক্ষোভ শ্রমিকদের...

0
নাগরাকাটাঃ বকেয়া মজুরির দাবিতে তুমুল বিক্ষোভ দেখালেন গ্রাসমোড় চা বাগানের শ্রমিকরা। শুক্রবার সকালে বাগানের অফিসের সামনে জমায়েত হয়ে তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি দুই দলেরই...

Most Popular