Monday, June 5, 2023
HomeTop Newsপথ আটকে শ্রমিককে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি, দুষ্কৃতীদের ধরতে তৎপরতা শুরু করেছে...

পথ আটকে শ্রমিককে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি, দুষ্কৃতীদের ধরতে তৎপরতা শুরু করেছে পুলিশ  

রায়গঞ্জঃ দুষ্কৃতীদের এলোপাতাড়ি গুলিতে গুরুতর জখম হলেন এক শ্রমিক। সোমবার রাত সাড়ে এগারোটা নাগাদ ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুরের ডালখোলা থানার ১২ নম্বর জাতীয় সড়কের ময়না ব্রিজের ওপর। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রাস্তার ওপরে পড়েছিলেন ওই শ্রমিক। সেই অবস্থাতেই ফোন করে নিজের বাড়িতে খবর দেন তিনি। সেই খবর পেয়েই তাঁর পরিবারের লোকেরা ঘটনাস্থলে এসে তাঁকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় ডালখোলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজে পাঠানো হয়। পরবর্তীতে জখম ব্যাক্তিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য স্থানান্তরিত করা হয়েছে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। তাঁর লিভারে গুলি আটকে রয়েছে বলে খবর হাসপাতাল সূত্রে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে জখম ব্যাক্তির নাম মহন্মদ আফজাল হোসেন(৪৫), বাড়ি ডালখোলা থানার জগদিশপুর সংলগ্ন ভগবানপুর গ্রামে। তিনি ডালখোলার পূর্ণিয়া মোরে ভুট্টা গোডাউনে কাজ করে। তার একটি ট্রাক্টর রয়েছে। প্রতিদিন ভুট্টা লোড করে ডালখোলার একটি ফ্যাক্টরিতে সাপ্লাই করে প্রতিদিন ট্রাক্টরের ভাড়া হিসেবে ২৫০০ টাকা ও শ্রমিকের কাজ করার জন্য ৫০০ টাকা করে পান। গতকাল রাতে বাড়ি ফেরার সময় পূর্ণিয়া মোড় এলাকার একটি দোকানে চা ও পান খেয়ে মোটর বাইক নিয়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন। সেই সময় দুষ্কৃতীরা ওই শ্রমিকের পিছু নেয়। ময়না ব্রিজের কাছে তার রাস্তা আগলে ধরে তাকে লক্ষ্য করে একের পর এক গুলি চালাতে থাকে দুষ্কৃতীরা। একটি গুলি তার হাতে লাগে অপরগুলিটি তলপেটে লেগে লিভারে আটকে যায়।

জখম মহম্মদ আফজাল হোসেন জানান, মোটর বাইকে ছিল তিন আততায়ী। তারাই তাকে লক্ষ্য করে পরপর দুই রাউন্ড গুলি চালায়। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শল্য চিকিৎসক সঞ্জয় শেঠ বলেন, “ওই ব্যক্তির একটি গুলি লিভারে আটকে রয়েছে তা বের করা কঠিন সেই কারণেই উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।

ডালখোলা থানার পুলিশ আধিকারিক বলেন, সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে আততায়ীদের শনাক্তকরণের কাজ চলছে। বাইকে থাকা তিন দুষ্কৃতীর খোঁজে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। জখমের দাদা মহম্মদ ইমরান হোসেন বলেন,“আমরা বাড়িতে ঘুমিয়ে ছিলাম। আমার ভাই প্রতিদিনই কাজ সেরে রাত এগারোটা সাড়ে এগারোটা নাগাদ বাড়ি ফেরে। গতকাল রাতে আমার মেয়েকে ফোন করে সে জানায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ডালখোলার ময়না ব্রিজের কাছে পড়ে রয়েছে। এরপর ডালখোলা থানার পুলিশ ও আমরা মিলে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাই। আমার ভাইয়ের তো কোন শত্রু ছিল না। কেন আমার ভাইকে খুন করার চেষ্টা হল কেউ তা বুঝে উঠতে পারছি না ভাইয়ের পকেটে যে পরিমাণ টাকা ছিল সেটাই রয়েছে। দুষ্কৃতীরা টাকা পয়সা মোবাইল ফোন কোন কিছুই লুট করেনি। অবিলম্বে দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments