Find us on

চুল কাটার আতঙ্ক, ভূত নাকি অন্য কিছু!
উত্তর দিনাজপুর
উত্তরবঙ্গ
শিরোনাম

রায়গঞ্জ, ১১ আগস্টঃ চারদিক অন্ধকার, নিঝুম। ঝিঝিপোকার ডাক। হঠাত্ বন্ধ দরজায় ঠক্ ঠক্ আওয়াজ। দরজা খুললেও দেখা নেই কারোর। কিছুক্ষণ পর জানালায় ধুপধাপ আওয়াজ। আতঙ্কে চিৎকার করার ক্ষমতাটুকুও বোধহয় হারিয়ে গিয়েছে।

এ কোনো সিনেমার গল্প নয়। এমনই ভুতুড়ে কান্ডে রিতিমতো আতঙ্কিত উত্তর দিনাজপুর জেলার করণদীঘি থানার বিলাসপুর এলাকা। শুধু ভুতের ভয়ই নয়, ওই এলাকায় নাকি ঘুমন্ত অবস্থায় মহিলাদের মাথার চুলও কেটে নেওয়া হচ্ছে! তবে কে কাটছে, কখন কাটছে তার হদিস পাওয়া যাচ্ছে না।

এমনি ঘটনার সাক্ষী থাকলো রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালের চিকিৎসক থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য কর্মীরা। বিলাসপুর এলাকার এক স্কুল ছাত্রী আজ বিকেলে ঘুম থেকে উঠেই দেখে যে তার মাথার চুল কেউ কেটে দিয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে চিৎকার করে অজ্ঞান হয়ে যায়। শুক্রবার সন্ধ্যায় পরিবারের লোকেরা রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালে ভরতি করেছে ওই ছাত্রীকে। স্থানীয়রা জানান, বেশ কয়েকদিন ধরেই গ্ৰামে এধরনের ঘটনা ঘটছে। রাতের দিকে কেউ দরজায় ধাক্কাচ্ছে, কিন্তু কোনো মহিলা দরজা খুললেই তার চুল কেটে দেওয়া হচ্ছে। তবে কে এই কাণ্ড ঘটাচ্ছে তা দেখা যাচ্ছে না। ইতিমধ্যেই দুজন মহিলার চুল কেটে নেওয়ার তিনদিন পরই মৃত্যু হয়েছে তাদের। পরপর সাতদিন ধরে এহেন কান্ডে চরম আতঙ্কিত গ্ৰামবাসীরা। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, করনদিঘী, টুঙ্গিদীঘি, বিলাসপুর এলাকার বাসিন্দারা সন্ধ্যার পর ভূতের ভয়ে ঘর থেকে বেরোচ্ছে না।

এদিকে খারাপ নজর থেকে বাঁচাতে দরজার বাইরে লেবু-লংকা, নিমের ডাল, ঝাঁটা ঝুলিয়ে রাখছেন অনেকেই। বুদ্ধিজীবীদের মতে, এর পেছনে কোনো অসাধু চক্র থাকতে পারে। অথবা কেই মজা করার ছলেও এই ঘটনা ঘটাতে পারে।

এদিকে পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞানমঞ্চ থেকে জানানো হয়েছে, তারা এব্যাপারে তদন্ত করে দেখে কুসংস্কার এবং গুজবের বিরুদ্ধে গ্রামে গ্রামে গিয়ে প্রচার চালাবে। প্রয়োজনে গণমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ার সাহায্য নেবেন তারা। বিষয়টি জানাজানি হতেই সক্রিয় হয়ে হয়েছে পুলিশ প্রশাসন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *