Find us on

ভুয়ো ফাইভ স্টার রিভিউয়ে চলছে কেনাবেচাঃ সমীক্ষা
আন্তর্জাতিক
প্রথম পাতা
প্রযুক্তি

লন্ডন, ২৯ এপ্রিলঃ বিবিসি ফাইভ লাইভ নামে এক রেডিও অনুষ্ঠানের অনুসন্ধানে দেখা গিয়েছে, অ্যামাজনের মত নামীদামী অনলাইন জায়ান্টের ক্রেতাদের লোভ দেখানো হচ্ছে, যে পণ্য তারা কিনছেন তার ইতিবাচক রিভিউ দিলে ফেরত দেওয়া হবে দাম।

ট্রাস্ট পাইলট এবং অ্যামাজনের বক্তব্য, ভুয়া রিভিউয়ের জায়গা নেই তাদের সাইটে।

অনালাইনে কেনাকাটা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষ ইদানিংকালে বেশি নির্ভর করছে রিভিউয়ের ওপর।

ব্রিটেনের সরকারি পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, বছরে ২৩০০ কোটি পাউন্ডের যে ব্যবসা এদেশে হচ্ছে, তা অনেকটাই নির্ভর করছে ক্রেতাদের রিভিউয়ের ওপর।

ব্রিটেনের চার্টার্ড ইনিস্টিউট অফ মার্কেটিং নামে একটি সংস্থার করা এক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, ব্রিটেনের প্রাপ্তবয়স্ক ক্রেতাদের ৭৫ শতাংশই কেনাকাটার আগে অনলাইনে রিভিউ পড়ে নেন। তবে তাদের অর্ধেকই এখন মনে করেন, অনেক রিভিউ ভুয়ো।

আমেরিকায় অনলাইন ভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠান রিভিউ-মেটার কর্ণধার টমি নুনান বলেন, ‘বহু টাকা ছড়িয়ে বিক্রেতারা কারসাজি করার চেষ্টা করছে। যেমন, আপনি খুব সস্তা একটি ব্লু-টুথ হেডসেট বিক্রি করছেন, কিন্তু রিভিউ র‍্যাংকিং-এ সেটি একেবারে ওপরের দিকে নিয়ে গেলেন, ব্যাস কেল্লাফতে আপনার ব্যবসা।’

বিবিসি এমন কিছু ফেসবুক গ্রুপের সন্ধান পেয়েছে যেখানে ঢোকা মাত্রই ভালো রিভিউয়ের বদলে টাকা ফেরত দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে।

ই-বে ওয়েবসাইটে দেওয়া বিজ্ঞাপনে সাড়া দিয়ে বিবিসি ট্রস্ট-পাইলট ওয়েবসাইটে ভুয়ো ফাইভ-স্টার রিভিউ কিনতে সমর্থ হয়।

ট্রাস্ট পাইলট বলেছেন, ভুয়ো রিভিউয়ের ব্যাপারে তারা জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করে। ই-বে বলেছে, রিভিউ কেনা-বেচা তাদের সাইটে নিষিদ্ধ এবং এরকম লিস্টিং তারা সরিয়ে ফেলবে।

ভুয়ো ফাইভ স্টার রিভিউয়ে চলছে কেনাবেচাঃ সমীক্ষা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *